,

বেতাগীতে ইউপি নির্বাচন কেন্দ্র করে সংর্ঘষে ১০ জন আহত II ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ

নিজস্ব প্রতিবেদক ♦
বরগুনার বেতাগীতে পূর্ব শত্রুতার জের ও ইউপি নির্বাচন কেন্দ্র করে সংর্ঘষে ১০ জন আহত হয়েছে। গুরুতর আহত দুই জনকে বরিশালসহ স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করায় দুই প্রার্থীর কর্মীদের মধ্য সংঘাত-সংঘর্ষের আশংকায় আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে রাখতে আগ থেকেই একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ দেয়া হয়েছে। আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ইমাম হোসেন শিপন বিকেল ৫টায় মনোনয়নপত্র বাছাইয়ে স্বশরীরে অংশ নিলেও বিদ্রোহী প্রার্থী ইউসুফ শরীফ তার উপর হামলার আশঙ্কায় বাছাইয়ে অংশ না নিলেও তার পক্ষে কর্মীরা অংশ নেন।
জানা গেছে , শুক্রবার (১৯ মার্চ) দুপুর ১২ টার দিকে উপজেলার সড়িমুড়ি ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ইমাম হাসান শিপন ও বিদ্রোহী প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান ইউসুফ আলী শরীফের সমর্থকরা মনোনয়ন পত্র বাছাইয়ে অংশ গ্রহণের জন্য উপজেলা সদরে রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয় পৌছার প্রস্তুতি নিচ্ছিল। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যাক্তি জানান, আসার পথে কালিকাবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠের রাস্তায় উপড় দুই গ্রুপের মধ্যে কথার কাটাকাটি ও ইটপাটকেল নিক্ষেপের এক পর্যায় অতর্কিত হামলা শুরু হয়। এ সময় পাল্টাপাল্টি সংর্ঘষে ইমাম হোসেন শিপনের কর্মি দোলন, বাচ্চু, ও বেলাল এবং ইউসুফ শরীফের কর্মী শোভা রঞ্জন ও মালেকসহ দুই পক্ষের ১০ জন আহত হয়। এদের মধ্যে গুরুতর আহত দোলন ও শোভারঞ্জন কে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বেতাগী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসারত মালেক মৃধা জানান, রাস্তায় জড়ো অবস্থায় কিছু বুঝে উঠার আগেই তাদের উপড় হামলা শুরু হয় ।
ইমাম হোসেন শিপনের স্ত্রী রিক্তা বেগম অভিযোগ করে এসকে টিভিকে বলেন, ইউসুফ শরীফের সমর্থকরা পূর্ব পরিকল্পিতভাবে তাদের কর্মীদের উপর হামলা করে কুপিয়ে জখম করে। তিনি সঠিক তদন্ত পূর্বক এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন।
এদিকে ইউসুফ শরীফের সাথে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তার সাথে যোগাযোগ করা যায়নি। পরে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তার এক কর্মী জানান, ইউসুফ শরীফ যাতে মনোনয়ন পত্র বাছাইয়ে অংশ না নিতে পারে সেজন্য ইমাম হোসেন শিপনের কর্মীরা আগ থেকেই হামলার জন্য প্রস্তুত হয়েছিল। তাই শরীফের লোকজন ভিন্ন পথে ট্রলার যোগে বেতাগীতে আসার চেষ্টা করলে পথরুদ্ধ তাদের উপর হামলা চালায়।
বেতাগী থানার অফিসার ইনচার্জ কাজী শাখাওয়াত হোসেন তপু জানান, বর্তমানে ঐ এলাকার পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। এ ঘটনার সাথে সাথে সেখানে পুলিশ পাঠানো হয়। এখনো কোন মামলা দায়ের করা হয়নি। পুরো এলাকায় পুলিশের নজরদারি রয়েছে।
বরগুনা জেলা প্রশাসন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, সরিষামুড়ী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর কর্মী সমর্থকদের হামলা ও হুমকির বিষয় নিরাপত্তা চেয়ে চেয়ারম্যান প্রার্থী ইউসুফ শরীফ আবেদন করেন।

Print Friendly

     এই ক্যাটাগরীর আরো খবর