,

বরগুনার বেতাগীতে গৃহহীন স্বপন বনিকের কাছে ঘরের চাবী হস্তান্তর করেন অতিরিক্ত সচিব শ্যামল কর্মকার

বেতাগীতে প্রধানমন্ত্রী উপহার হিসেবে বেতনের টাকায় গৃহহীনকে ঘর দিলেন অতিরিক্ত সচিব শ্যামল কর্মকার

নিজস্ব প্রতিবেদক ♦
মুজিববর্ষে প্রধানমন্ত্রী উপহার হিসেবে বেতনের টাকায় গৃহহীনকে ঘর নির্মাণ করে দিলেন বরগুনার বেতাগীর কৃতি সন্তান মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব শ্যামল চন্দ্র কর্মকার। গৃহহীন স্বপন বনিকের কাছে ঘরের চাবী হস্তান্তর উপলক্ষে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
রবিবার (৬ জুন) সকাল ১১ টায় পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডে সেমি পাকা টিনশেডের এ ঘরের চাবী হস্তান্তর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন হিসেবে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বপন বনিকের নিকট চাবি হস্তান্তর করেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব শ্যামল চন্দ্র কর্মকার। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান মো: মাকসুদুর রহমান ফোরকান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: সুহৃদ সালেহীন, বেতাগী পৌর সভার মেয়র আলহাজ¦ এবিএম গোলাম কবির, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মোতালেব সিকদার, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি বাবুল আক্তার, সাপ্তাহিক বিষখালী পত্রিকার সম্পাদক আব্দুস সালাম সিদ্দিকী, বেতাগী প্রেসক্লাবের সভাপতি সাইদুল ইসলাম মন্টু, সিনিয়র সহ-সভাপতি আকন্দ শফিকুল ইসলাম, সহ-সভাপতি মহসীন খান, সাধারণ সম্লাপাদক লায়ন মো: শামীম সিকদার, পৌর কাউন্সিলর লুৎফুর রহমান ফিরোজ , উপজেলা যুবলীগের সভাপতি প্রভাষক জহিরুল ইসলাম লিটন, শেখ রাসেল জাতীয় শিশু কিশোর পরিষদের বরগুনা জেলা শাখার সভাপতি এমডি রিয়াজ হোসেন, প্রেসক্লাবের দপ্তর সম্পাদক অলি আহম্মেদ সহ ভিন্ন পেশার প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন। দুই কক্ষ বিশিষ্ট ৪৫০ বর্গ ফুটের এ ঘরে রয়েছে দুটি বেড, টয়লেট, রান্না ঘর ও একটি বারান্দা।
ঘরের অভাবে বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে বেড়ানো এই পরিবারটি নতুন ঘর পেয়ে এখন আনন্দে আত্মহারা। স্বপন বনিক জানান, সে কৃতাজ্ঞ। এ ঘরে তার পরিবার-পরিজন নিয়ে স্বাচ্ছন্দে বসবাস করতে পারবেন।
জানা গেছে, স্বপন বনিক পৌর শহরের একজন ক্ষুদ্র চা বিক্রেতা। ভুমিহীন স্বপন বনিক অর্থাভাবে ঘর নির্মান করতে না পারায় দীর্ঘদিন ধরে সবুজ কানন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক স্বপন সরকারের জায়গায় ডেরা উঠিয়ে বসবাস করে আসছিলেন। স্বপন সরকারের দান করা জমিতে নতুন এ ঘরটি উত্তোলন করা হয়েছে। মহামারী করোনায় আয় রোজগার বন্ধ হয়ে যাওয়ায় ৪ সদস্য‘র পরিবার নিয়ে স্বপন বনিক চরম অসহায়াত্বের মধ্যে পড়ে।
একজন গৃহহীন মানুষের পাশে দাঁড়ানোর বিষয়ে শ্যামল চন্দ্র কর্মকার বলেন, ‘স্বপন বনিক আমার বাল্য বন্ধু। আমাদের একত্রেই শৈশব কেটেছে। আর্থিক দুরবস্থার কারণে স্বপনের লেখাপড়া প্রাথমিক শিক্ষার পর্যায়েই থেমে গেছে। গৃহহারা ভুমিহীনদের আশ্রয়নের অধিকার প্রতিষ্ঠায় ওর জন্য ঘর নির্মান করে দেওয়া হয়েছে। প্রতি মাসে বেতনের টাকা থেকে কিছু কিছু টাকা পাঠিয়েছি। সেই অর্থে ঘর নির্মান কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে। স্বপনের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে ঘর হস্তান্তর করার সুযোগ পেয়ে নিজেকে ধন্য মনে করছি।

Print Friendly

     এই ক্যাটাগরীর আরো খবর